Home / খবর / উত্তরবঙ্গ / তিস্তাসহ ইন্দো-বাংলাদেশের একাধিক সমস্যা সমাধানের আশ্বাস

তিস্তাসহ ইন্দো-বাংলাদেশের একাধিক সমস্যা সমাধানের আশ্বাস

তিস্তা সমস্যা সমাধানের পথে ভারত।খুব শীঘ্রই সমস্যা সামাধান করা যাবে বলে আশা ব্যাক্ত করলেন ভারত সরকারের উপনিরাপত্তা উপদেষ্টা অরবিন্দ গুপ্ত।

শুক্রবার বিকেলে দিল্লিতে সপ্তম ভারত-বাংলাদেশ নিরাপত্তা সংলাপের সমাপনী অধিবেশনে তিস্তা জলের সমস্যার সমাধান নিয়ে একাধিক কথা জানান তিনি। পাশাপাশি বেশ কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনার প্রসঙ্গে উঠে আসে নানান তথ্য।

অরবিন্দ গুপ্ত বলেন, ভারত এবং বাংলাদেশের বর্তমান নেতৃত্বের দূরদর্শিতায় নিরাপত্তাসহ অন্যান্য সব ক্ষেত্রে ইতিবাচক অগ্রগতি সাধিত হচ্ছে।অতীতে ভারত ও বাংলাদেশের দীর্ঘ সীমান্তজুড়ে যে সমস্যা ছিল তার অধিকাংশই সমাধান হয়েছে।ভবিষ্যতে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।সমাপনী পরিচালনা করেন সাবেক পররাষ্ট্রসচিব পিনাক চক্রবর্তী।

বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায় ভারতের অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন-দিল্লিতে দুদিনব্যাপী এই নিরাপত্তা সংলাপের আয়োজন করে।আলোচনায় দুই দেশের নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা অংশ নেন।

উপনিরাপত্তা উপদেষ্টা বলেন, সন্ত্রাসবাদ ভারত-বাংলাদেশ উভয় দেশের জন্যই সাধারণ সমস্যা। যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে সব সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে ছিলেন ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের কমান্ড্যান্ট লেফটেন্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী, মেজর জেনারেল এ কে এম আবদুর রহমান, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আদিল চৌধুরী, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান, ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, অধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন, হুমায়ুন কবীর, ড. নিলুফার ইয়াসমিন, সাহাব এনাম খান, ফয়েজ সোবহান ও আশীষ বণিকসহ অন্যান্যরা।

অনুষ্ঠানে অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের পরিচালক সঞ্জয় জোশী বলেন, পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন এবং দুই দেশের মধ্যে বিরাজমান সমস্যার সমাধানে ভারত ও বাংলাদেশের পদক্ষেপ বিশ্বের জন্য মডেল। বিদ্যমান অন্যান্য সমস্যার সমাধানের মাধ্যমে দুই দেশের সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

সমাপনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের সভাপতি ফারুক সোবহান বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সহযোগিতার চাবিকাঠি রয়েছে নিরাপত্তা সহযোগিতার মধ্যে। দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা সহযোগিতা বৃদ্ধি পেলে সব ক্ষেত্রেই সহযোগিতা বাড়বে।

তিনি আরও জানান, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও ভারত শুধু এশিয়ায় নয়, সারা বিশ্বের মধ্যে অগ্রগামী। দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি পেলে উভয় দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি আরো ত্বরান্বিত হবে।

Check Also

কংগ্রেসের বুথে আগুন ধরানোর অভিযোগ ঘিরে উত্তেজনা চোপড়ায়

চোপড়া,৩ এপ্রিলঃ কংগ্রেসের বুথে আগুন ধরানোর অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ালো চোপড়ার দাসপাড়া এলাকায়। সূত্রের …