শিলিগুড়িতে মনোবল বাড়াচ্ছে চ্যাটারবক্স-স্পিকার্স ইনস্টিটিউট

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আত্মবিশ্বাসের বিশেষ প্রয়োজন।ব্যক্তিগত বা পেশাদার দুটি ক্ষেত্রেই এর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।চ্যাটারবক্স-স্পিকার্স ইনস্টিটিউট এমন একটি প্রতিষ্ঠান যা সরকারী জায়গায় জনসমক্ষে কীভাবে কথা বলতে হয় তা শেখায়।সকলের মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়ায়।


যারা নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করতে ভয় পায় এবং মানুষের সাথে কথা বলতে দ্বিধাবোধ করে তাদেরকে বিশেষ ভাবে প্রশিক্ষিত করে চ্যাটারবক্স।চ্যাটারবক্স-স্পিকার্স ইনস্টিটিউটের প্রধান কার্যালয় শিলিগুড়িতে অবস্থিত।

চ্যাটারবক্স ‘আউট অফ দ্য বক্স’ পাঠ্যক্রমের মাধ্যমে ৮ থেকে ১৮ বছর বয়সী প্রত্যেকের ভয় কাটিয়ে সার্বজনীন জায়গায় কথা বলার ক্ষেত্রে তাদের পারদর্শী করে তোলে।


চ্যাটারবক্সের ৩ মাসের কোর্স রয়েছে, যেখানে শিক্ষার্থীদের প্রতি সপ্তাহে ২ ঘন্টা করে ক্লাস হয়।চ্যাটারবক্স শুধুমাত্র ব্যাকরণ এবং ইংরেজি ভাষায় সীমাবদ্ধ নয়।

গত ৮ সেপ্টেম্বর শিলিগুড়ির পিবিআর টাওয়ারে চ্যাটারবক্সের তরফে একটি বক্তৃতা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল।যেখানে প্রায় ৪০ জন প্রতিযোগী অংশ নিয়েছিল।প্রতিযোগীরা চ্যাটারবক্স-স্পিকার্স ইনস্টিটিউট থেকে লেবেল ১ এর বেসিক কোর্স করেছে।

চ্যাটারবক্সের কো-ফাউন্ডার ধীরজ কে গোলিয়ান এবং জোসেফ সেবাস্টিয়ান উদ্যোগে আয়োজিত এই প্রতিযোগিতা জুনিয়র এবং সিনিয়র দুটি বিভাগ বিভক্ত ছিল।প্রতিযোগিতায় অন্যান্য ক্লাব ও সংস্থার সদস্যদেরও আমন্ত্রণ করা হয়েছিল।উভয় শ্রেণী থেকে তিনজন করে প্রতিযোগীকে বিজয়ী বলে ঘোষণা করা হয়েছে।সকলকে কোর্স শেষ করার প্রমানপত্রও দেওয়া হয়েছিল।

চ্যাটারবক্সের শিলিগুড়িতে ৩ টি, গুয়াহাটিতে ১ টি, কলকাতায় ৩ টি, রাঁচিতে ১ টি, জয়পুরে ২ টি, দেরাদুনে ১টি এবং নেপালের কাঠমান্ডুতে ২টি অফিস রয়েছে।চ্যাটারবক্স নব প্রজন্মদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনে।তাদের পথ দেখায়।২০২৩ পর্যন্ত চ্যাটারবক্সের লক্ষ্য দেশের ১০০টি এবং ৫টি আন্তর্জাতিক শহরে নিজের অফিস গড়ে তোলা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

This site is protected by reCAPTCHA and the Google Privacy Policy and Terms of Service apply.